Breaking News
Home / TRENDING / পদ্মার ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করেছে ওপার বাংলা! সাফাই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

পদ্মার ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করেছে ওপার বাংলা! সাফাই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

নীল রায়।‌ পদ্মার ইলিশ পশ্চিমবঙ্গে আসে না। সেই দায় যেন রাজ্যবাসী কোনওভাবেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে ঘাড়ে না চাপান। তার চাইতে আগেভাগেই সাফাই গেয়ে রাখলেন তিনি। মঙ্গলবার রাজ্যের মাছ উৎপাদন নিয়ে বলতে উঠে প্রথমেই বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা চুক্তির প্রসঙ্গ তোলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিস্তা জলবণ্টন চুক্তি না হওয়ায় তা নিয়ে বাংলাদেশ আক্ষেপ জানিয়েছিল। নরেন্দ্র মোদি সরকার দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসেছে আবার তিস্তা জলবণ্টন চুক্তি নিয়ে পদক্ষেপ নেবে তা ইতিমধ্যেই স্পষ্ট বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। সেই প্রসঙ্গেই মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, “তিস্তার জল দিতে পারিনি ওদের। সেটা নিয়ে ওদের দুঃখ আছে। ওরা বন্ধু দেশ। আমাদের উপায় থাকলে দিতাম। ওরাও ইলিশ মাছ দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।” প্রসঙ্গত, গত চার বছর ধরে এপাড়ে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ওপার বাংলা। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, “বাংলার মানুষ মাছে-ভাতে থাকে। ইলিশের চাহিদার জন্য আমরা ইলিশ মাছের রিসার্চ সেন্টার করেছি। বাংলায় এখন আর ইলিশের অভাব নেই। এখানেই প্রচুর ইলিশ হচ্ছে। দু’-এক বছরের মধ্যে আর বাইরে থেকে ইলিশ নিতে হবে না। তা ছাড়া আমাদের ইলিশ উৎপাদনের রিসার্চ সম্পূর্ণ হলে আগামিদিনে আমরা সারা পৃথিবীতে ইলিশ মাছ সরবরাহ করতে পারব।” মুখ্যমন্ত্রী সাফাই দিলেও, তিস্তা জলবণ্টন চুক্তিতে বাধা দেওয়াতেই যে পদ্মার ইলিশ এবারের বাঙ্গালীদের কাছে পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে ওপার বাংলা। তা ইতিমধ্যে প্রকট হয়েছে রাজ্যবাসীর কাছে।

Spread the love

Check Also

আজ মহারাষ্ট্র, হরিয়ানা সহ দেশের ৬৪টি বিধানসভা ও ২টি লোকসভা কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদন:   আজ কড়া নিরাপত্তায় চলছে মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানায় বিধানসভা নির্বাকনের ভোট গ্রহণ। সকাল …

নিঃশব্দে শতবর্ষ উদযাপন সিদ্ধার্থশংকর রায়ের

নীল রায়। নিঃশব্দে পালিত হল প্রয়াত ও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থশংকর রায়ের (Siddharthshankar Roy) শততম জন্মদিন। …

দুর্গাপুজোর কার্নিভালের পোস্টারে মমতার ছবি কেন? প্রশ্ন তুললেন বাবুল সুপ্রিয়

নীল রায়। দুর্গাপুজোর কার্নিভাল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) মাত্রাতিরিক্ত ছবির ব্যবহার নিয়ে সরব হলেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *