Breaking News
Home / সান-ডে ক্যাফে / বিশেষ নিবন্ধ

বিশেষ নিবন্ধ

ধারাবাহিক ‘ভাষার ভাসান’, আজ ‘ভটভটিতে ভটচাজের বউ, আর্যর বাংলায় আগমন’

 সংকল্প সেনগুপ্ত: বাংলা ভাষা জীবনানন্দে (দাশ) যা সতীনাথে (ভাদুড়ী) তা না, হুতুমে যেমন তার থেকে বহু গুণে আলাদা ত্রৈলোক্যনাথের  (মুখোপাধ্যায়) বাক্য সমন্বয়। এইরকম করে শক্তি (চট্টোপাধ্যায়) থেকে কমলকুমার (মজুমদার) আলাদা, শিবরাম (চক্কোত্তি) থেকে হিমানীশ (গোস্বামী), তারাপদ (রায়) থেকে শীর্ষেন্দু-সুনীল-উৎপল-জয়-মৃদুল-সুবোধ, কিংবা স্বদেশ থেকে নবারুণ (ভট্টাচার্য) ঘুরে কমল (চক্রবর্তী) হয়ে হাল আমলে …

আরও পড়ুন »

২৩ অক্টোবর, সুনীলদার শবযাত্রা, মৃত্যুর দিক

 অভিজিৎ বেরা একটা মৃত্যু তোমাকে কী কী এনে দিতে পারে? কী আবার! একটা আদিগন্ত শূন্য মাঠ। একলা হয়ে যাওয়া একটা রোববারের সকাল। একটা যাত্রীবিহীন ট্রাম। তার ঘন্টা বেজে চলেছে তো চলেইছে। তবু কেউ উঠছে না। একটা শহর যেখানে মড়ক না কী যেন লেগেছে। কোনও জনমানবের চিহ্ন পর্যন্ত নেই। আর আমি …

আরও পড়ুন »

‘ভাষার ভাসান, বাংলাবাজি’, সংকল্প সেনগুপ্তর নতুন ধারাবাহিক

 সংকল্প সেনগুপ্ত: বাংলা ভাষা জীবনানন্দে (দাশ) যা সতীনাথে (ভাদুড়ী) তা না, হুতুমে যেমন তার থেকে বহু গুণে আলাদা ত্রৈলোক্যনাথের  (মুখোপাধ্যায়) বাক্য সমন্বয়। এইরকম করে শক্তি (চট্টোপাধ্যায়) থেকে কমলকুমার (মজুমদার) আলাদা, শিবরাম (চক্কোত্তি) থেকে হিমানীশ (গোস্বামী), তারাপদ (রায়) থেকে শীর্ষেন্দু-সুনীল-উৎপল-জয়-মৃদুল-সুবোধ, কিংবা স্বদেশ থেকে নবারুণ (ভট্টাচার্য) ঘুরে কমল (চক্রবর্তী) হয়ে হাল আমলে …

আরও পড়ুন »

পুরাণ আলোকে বাহন ও দেবী, পার্থসারথি পাণ্ডার গদ্য

 পার্থসারথি পাণ্ডা পুরাণ আলোকে বাহন ও দেবী মৎস্য পুরানের একটি কাহিনিতে রয়েছে উমার গৌরী হয়ে ওঠার কথা। সেখানে বলা হয়েছে, সতী দেহত্যাগ করে হিমালয়ের মেয়ে হয়ে তো জন্মালেন, কিন্তু তাঁর গায়ের রঙ হল ঘোর কালো। নাম হল, উমা। উমা অনেক তপস্যা করে শিবকে তুষ্ট করে তাঁকে স্বামী হিসেবে পেলেন। নিজে …

আরও পড়ুন »

ম্যারাপ, পলাশ বর্মনের গদ্য

 পলাশ বর্মন   ম্যারাপ কী লিখব? কিছুই তো মনে আসছে না! কতক্ষণ হল, আমি সাধের ল্যাপটপের স্ক্রিনে তাকিয়ে ঠায় বসে আছি। এপাশ-ওপাশ নড়ছি-চড়ছি; মাঝে মাঝে বোতল খুলে, নিছক নিরুপায় বলে, শুধু সাদা জলই খাচ্ছি। আমাদের এই জল খাওয়া নিয়েও ইদানিং বাঙালি নিজেই নিজের খিল্লি ওড়াচ্ছে দেখছি। এও কোনও হিন্দির প্রভাব …

আরও পড়ুন »

সুমন ভট্টাচার্যের নিবন্ধ, ‘বং গায়’-এর সঙ্গে টলিউড দর্শন

 সুমন ভট্টাচার্য: পুজোয় আপনার ইচ্ছে কি? এই প্রশ্নটা যদি আমায় কেউ করে, তাহলে এই প্রৌঢ়ত্বের সীমানায় দাঁড়িয়ে ঠিক কি উত্তর দেব? চারদিন ধরে আড্ডা, ভুড়িভোজ… কোথাও ঘুরতে যাওয়া? না, আমি বরং কিরণ দত্ত ওরফে ‘বং গায়’-এর মতো সাহসী হতে চাই, কুন্ঠাবিহীনভাবে কিছু কথা বলতে চাই। এই ইউটিউব আর কেন এত …

আরও পড়ুন »

চৈতন্য দেহি মে, শ্বাশত করের গদ্য

 শাশ্বত কর চৈতন্য দেহি মে ভোর জাগছে। ভোর বড় হলে সকাল হয়। সকালের যুবাবস্থা দিন আর দিনসোনাটির বার্ধক্যের শেষে অবধারিত রাত্রি। শেষ নয়। শেষ বলে কিছু নেই। আলোর সায়াহ্নে অন্ধকার বাড়ে আর অন্ধকারের অন্তর থেকে আলোর প্রসব হয়। রাত্রির অবসানে ফের জাগেন ঊষা। সরল চক্র, অথচ জটিল ব্যাপ্তি, অনন্ত গভিরতা! …

আরও পড়ুন »

রবিবারের গদ্য: বৃষ্টির সুইসাইড নোট, আকাশে কর্পোরেট মেঘ, পাখিরা পাওলি দাম

 সৈকত ঘোষ: ঠিক যেভাবে ডাকটিকিট ছাড়াই মুগ্ধতা এসেছে পৃথিবীতে, যেভাবে আঙুল মেপে নেয় জলচিহ্ন—এও এক আশ্চর্যমোচন… বৃষ্টির শরীরে কবিতা, কবিতার শরীরে বৃষ্টি। আসলে সেই চেনা পরিচিত অ্যালবামটায় ধুলো পড়েছে। ভিড় জ্যাম ধোঁয়া শহর থেকে হারিয়ে গেছে বারিস বিকেল। এই পুরো ঘটনাটা নিয়ে আইটেম সঙ তৈরি হয়েছে, রঙ্গাবতী চকোলেট ছড়িয়েছে পুজোর …

আরও পড়ুন »

মেঘ, মেঘদূত ও রবীন্দ্রনাথ: বাঙালির বৃষ্টি-ঋতুর স্টাফ

 কিশোর ঘোষ: আষাঢ়শ্য প্রথমদিবসে মেঘমাশ্লিষ্টসানুং/ বপ্রক্রীড়পরিণতগজপ্রেক্ষণীয়ং দদর্শ (মেঘদূত, পূর্বমেঘ, কালিদাস)। মেঘদূতের এ’ দু’লাইন পুরোটা জানে না অনেকেই। এমনকি প্রথম লাইন ঠিকঠাক বলাও কঠিন। কিন্তু প্রথম দুই শব্দ? সব্বাই জানে। আসলে ‘আষাঢ়শ্য প্রথমদিবসে’ আওড়ালেই মন ভালো হয়ে যায়! ভালো তো হবেই, আষাঢ়-শ্রাবণ মানেই যে বৃষ্টি। আর বৃষ্টির সঙ্গে সঙ্গে এসে জোটে …

আরও পড়ুন »

বাংলা সাহিত্যে উদ্ভটছড়ার রূপকার শিশুসাহিত্যিক সুকুমার রায়

পার্থসারথি পাণ্ডা :  শিশুসাহিত্যিক সুকুমার রায়ের প্রথম লেখা বেরিয়েছিল শিবনাথ শাস্ত্রীর সম্পাদিত শিশুদের জন্য প্রকাশিত পত্রিকা ‘মুকুল’-এ, ১৮৯৬ খ্রিস্টাব্দে। সেই প্রথম লেখাটি একটি কবিতা, নাম ‘নদী’। তখন সুকুমারের বয়স মাত্র আট বছর (জন্ম, ১৮৮৭ সালের ৩০ অক্টোবর)। সেই বয়সেই পয়ার ছন্দে দারুণ দখল ছিল তাঁর। কবিতাটি সেই ছন্দেই লেখা। সুকুমারের …

আরও পড়ুন »

হয় ‘গ্ল্যামারাস পরাধীনতা’, নতুবা মুহূর্তের সংগ্রামী

কিশোর ঘোষঃ Freedom can be three types… The first is freedom from, the second is freedom for, and the third is just freedom. (Osho, The book of wisdom, chapter 3.)   আমি চাপা স্বরে নিজেকে বললাম, ‘কাল রবিবার, কাল স্বাধীনতা দিবস।’ কুনাল বলল, ‘কী বলছ?’ তখন সন্ধে যাচ্ছে রাতের দিকে। …

আরও পড়ুন »